দৈনিক সময়ের বার্তাঃ (বিশেষ প্রতিনিধি)

ঘিওর উপজেলা যুবলীগের ধর্ম সম্পাদক সজিব মিরের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় ৩ জুলাই ২০২০ তারিখ দুপুর ১১ টার দিকে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক হামজা খান কে মানিকগঞ্জ নগর ভবনের বাসায় থেকে সাদা পোশাকে ঘিওর থানার ১০/১২ জন পুলিশ সদস্য আটক করেন। হামজা খান সহ চার জনের বিরুদ্ধে ১২ জুন ২০২০ তারিখে ফেসবুকে মিথ্যা, মানহানীকর, অপমানজনক, তথ্য ও বক্তব্য প্রচারের দায়ে অভিযুক্ত করে ঘিওর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।

মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক হামজা খান

হামজা খানের গ্রেফতারের খবর দ্রুত ছরিয়ে পড়লে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের অন্তরগত বিভিন্ন ইউনিটের শত শত নেতা কর্মীরা তৎক্ষনাত ফেসবুকে প্রতিবাদের ঝড় তোলেন।বিকেল ০৪.০০ দিকে হঠাৎ করেই মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের অন্তরগত বিভিন্ন ইউনিটের প্রায় পাঁচ শতিাধিক নেতা কর্মীরা হামজা খানের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে অন্দোলন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়ে রাজ পথে নামলে, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জনাব আলহাজ্ব সুলতানুল আজম খান আপেল ও জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক লিয়াকত আলী ভান্ডারী, সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসার সরকার, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলামের হস্তক্ষেপ ও বিষয় টি আইনি প্রকিয়ায় দ্রুত সমাধানের আশ্বাসে ছাত্রলীগ নেতা কর্মীরা নগর ভবনের সামনে স্বল্প পরিসরে প্রতিবাদ সভা করেন।

ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা ফেসবুকে প্রতিবাদের ঝড় তোলেন।

হামজা খানের বিরুদ্ধে করা অভিযোগ সম্পর্কে জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা বলেন,বাংলাদেশে বহুল প্রচারিত জাতিয় দৈনিক কালের কন্ঠ ও আমার দেশ পত্রিকায় ধারাবাহীক ভাবে প্রকাশিত মানিকগঞ্জ ০১ আসনের সংসদ সদস্য ও তার সহযোগী যুবলীগ ছাত্রলীগের কতিপয় নেতাদের নামে প্রচারিত দূর্নীতি, চাঁদাবাজী ও মাদক ব্যবসা সহ বিভিন্ন খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে ছরিয়ে পড়লে হামজা খান সেই পত্রিকার খবর তার ফেসবুকে শেয়ার করে মাদক ব্যবসায়ী চাঁদাবাজদের দলিয় পরিচয়ের উর্ধেগিয়ে সঠিক তদন্ত ও বিচারের দাবি জানায়।

আর এই মাদক ও চাঁদাবাজীর বিচারের দাবি করায় হামজা খান সহ চার জনের নামে প্রতি হিংসার বশভুত হয়ে রানৈতিক ভাবে হয়রানি করার জন্য কতিপয় মহল মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

কালের কন্ঠ প্রতিকায় প্রকাশিত নিউজ যা হামজা তার ফেসবুকে শেয়ার করে

এই বেপারে জেলা ছাত্রলীগ ও অন্তরগত বিভিন্ন ইউনিটের নেতা কর্মীরা প্রতিবাদ সভায় বলেন, জাতিয় দৈনিক পত্রিকায় পকাশিত খবর শেয়ার করার কারনে হামজা খানকে মিথ্যা মামলার আসামী করায় তারা মর্মাহত তাই তারা অনতি বিলম্বে হামজা খানের নিঃশর্ত মুক্তি ও চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী চাঁদাবাজদের অনতি বিলম্বে গ্রেফতারের দাবি করেন।

প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সুদিপ্ত সাক্ষর, সফিকুল সানভি, সাংগঠনিক সম্পাদক, আলামিন নাজমুল, কাজি শিহাব হোসেন, সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ সিফাত কোরয়েশী সুমন,দেবেন্দ্র কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসিফ হোসেন শিশির, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আসিফ আহমেদ পিয়াস, সাধারণ সম্পাদক অভিজিৎ রায়, জেলা ছাত্রলীগের সদস্য আসিবুল ইসলাম ত্রয়ো, মিশন, সুষম, পৌর ছাত্রলীগ নেতা তাসিন সহ জেলা ছাত্রলীগের অন্তরগত বিভিন্ন ইউনিটের প্রায় পাঁচ শতিাধিক নেতা কর্মী।  

আপনার মতামত লিখুন